পোস্ট

অক্টোবর ২৩, ২০২০ থেকে পোস্টগুলি দেখানো হচ্ছে

Sangeet Byakaran

গোয়ালিয়রের রাজা মানসিংহ ১৪৮৬-১৫১৮ খ্রিঃ অবধি রাজত্ব করেন।এ সময় গোয়ালিয়র ঘরানা প্রবর্তিত হয়।তিনি বিশিষ্ট সঙ্গীতজ্ঞদের সাহায্যে  "মানকুতূহল" নামে গ্রন্থ রচনা করেন।এ সময় ভক্তি আন্দোলনের প্লাবন বয়ে যায়। উত্তর ভারত প্লাবিত হয় কবীর,মীরাবাঈ,শ্রীচৈতন্য মহাপ্রভুর গানে।ভজন,কীর্তনের প্রসার বেশি ঘটে।কীর্তনের প্রসার ঘটে বেশি বাংলা,বিহার,আসাম ও উড়িষ্যায়।চৈতন্যদেব,মীরাবাঈ যথাক্রমে কৃষ্ণভক্তি রসাত্মক  কীর্তন ও ভজনের প্রচার করেন। ১৫৫৬-১৬০৫ সালে মুঘল সম্রাট আকবরের সভায় সঙ্গীত সম্রাট তানসেন,নায়ক বক্সী,তানতরঙ্গ গোপাল প্রমুখ ৩৬ জন সঙ্গীতজ্ঞ ছিলেন।তানসেেনের নামানুসারে তাঁর বংশের গায়ক ও শিষ্যরা "সেনী ঘরানা" র নামে পরিচিত হন।তানসেন "মিঞা কি মল্লার" "মিঞা কি সারং" "দরবারী কানাড়া" প্রভৃতি রাগ তৈরি করেন।আকবরের নবরত্ন সভার এক রত্ন ছিলেন তানসেন। ১৫৮৪ সালে তুলসীদাস "রামচরিতমানস মানস" রচনা করেন।এছাড়া ছিলেন কৃষ্ণদাস কবিরাজ গোস্বামী,স্বামী হরিদাস গোস্বামী।ঠাকুর নরোত্তম দাস ক্লাসিকাল কীর্তনের প্রবর্তন করেন।একে রস বা লীলা কীর্তন বলে।লীলাকীর্তন অবলম্বনে গরাণহাটি