পোস্ট

অক্টোবর ১০, ২০২০ থেকে পোস্টগুলি দেখানো হচ্ছে

Sangeet shastra/byakaran

আবির্ভাব-তিরোভাব : একটি রাগের কিছু স্বরসমষ্টি অন্য রাগে পাওয়া যায়।যথা-নি (খাদের)রে (কোমল)গ  ম (কড়ি)রে (কোমল)গ পুরিয়া ও পুরিয়াধানেশ্রী উভয়তেই আছে।এক্ষেত্রে বোঝা যায় না যে কোন রাগ গাওয়া হচ্ছে।কিন্তু গ ম (কড়ি)ধ  গ ম (কড়ি)গ যোগ হলে পুরিয়া স্পষ্ট প্রকাশ পায়।ঐ স্বরগুচ্ছ না প্রয়োগে পুরিয়াধানেশ্রী রাগের তিরোভাব এবং যোগে পুরিয়া রাগের আবির্ভাব।সমপ্রকৃতির রাগে এই প্রক্রিয়া ঘটে। প্রাচীনকালে সঙ্গীত শাস্ত্রে 'রাগ' শব্দের উল্লেখ পাওয়া যায় না।মতঙ্গ ঋষির "বৃহদ্দেশী" গ্রন্থে প্রথম রাগের উল্লেখ পাওয়া যায়।আগে রাগ গাওয়া হতনা,জাতি গাওয়া হত।ভরতের নাট্যশাস্ত্রে সাতটি শুদ্ধ জাতি ও এগারোটি বিকৃত জাতির উল্লেখ আছে। সাতটি জাতি-ষাড়জী,আর্ষভী,গান্ধারী,মধ্যমা,পঞ্চমী,ধৈবতী,নৈষাদী।প্রথম চারটি ষড়জ গ্রাম জাত,বাকী তিনটি মধ্যমগ্রাম জাত।ষাড়জী থেকে পনেরোটি বিকৃত জাতি,বাকীগুলির প্রত্যেকটি থেকে তেইশটি করে শুদ্ধ বিকৃত জাতি উৎপন্ন হয়।